রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৯:২১ অপরাহ্ন

দৌলতপুরে স্কোয়াশ চাষে সফলতা

মানজারুল ইসলাম খোকন, দৌলতপুর / ১০২ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম: শুক্রবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ১১:৫১ পূর্বাহ্ন

আঁশজাতীয় বিদেশি সবজি স্কোয়াশ চাষ করে লাভের স্বপ্ন দেখছেন কুষ্টিয়া দৌলতপুরের গরুড়া গ্রামের কৃষক এনামুল হক। এরই মধ্যে নতুন জাতের নানারকম সবজি উৎপাদন করে সফল চাষি হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন তিনি। স্কোয়াশ একটি বিদেশি সবজি। স্থানিয় কৃষি অফিসারের পরামর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে ৩৩ শতাংশ জমিতে প্রথমবারের মতো স্কোয়াশ চাষে লাখ টাকার স্বপ্ন দেখছেন। তবে কর্তৃপক্ষ স্কোয়াশ চাষে উদ্দোক্তা বাড়ানোর সাথে সাথে সবধরনের সহযোগীর আশ্বাস দেন।

স্কোয়াশ মূলত একটি শীতকালীন সবজি। এটা দেখতে অনেকটা বাঙ্গি ফলের মতো। এটি মিষ্টি কুমড়ার স্বাদে পুষ্টিকর একটি সবজি। সবজি হিসেবে এই এলাকায় স্কোয়াশ নতুন হওয়ায় বাজারে এর চাহিদা ও দামও আশাব্যঞ্জক।

গরুড়া এলাকার আমিরুল ইসলাম বলেন, শীতকালের সবজি স্কোয়াশ যা আমাদের এলাকায় নতুন চাষ শুরু হয়েছে, স্বাদে অ-তুলনিয় মিস্টি কুমড়ার মতো। দামে স্বস্তা এলাকার বাজারে পাওয়া যায়।

সব্জি ব্যাবসায়ী আলতাপ হোসেন বলেন, ঢাকার চাহিদার উপর নির্ভর করে দাম। ভালো বিক্রি হয় আমাদের এলাকায় নতুন হিসেবে গ্রামের বাজারেও ভালো বিক্রি হয়।

সবজি চাষী এনামুল হক বলেন, প্রথমবারের মতো স্কোয়াশ চাষে ১ বিঘা জমিতে খরচ ২০-২২ হাজার খরচ করে ১ লক্ষ টাকার স্বপ্ন দেখছেন। কৃষি অফিসারের পরামর্শে এবছরে প্রথম শুরু করলেও আগামীতে আরো বেশি করবে, বাজারেও চাহিদা অনেক।

এদিকে দৌলতপুর কৃষি সম্প্রসারন অফিসার মো. আলী আহমেদ বলেন, প্রশিক্ষনের পাশা-পাশি সবধরনের সহযোগীতা করা হয়ে থাকে। একটি গাছে ১০-১৫ টি ফল ধরে। ৫০-৬০ দিন থেকেই বিক্রি করা যায়। যারা স্কোয়াশ চাষ শুরু করেছে তারা খুউব আগ্রহী, ভবিশ্যতে আরো উদ্দোক্তা তৈরী হবে। আঁশজাতীয় বিদেশি সবজি স্কোয়াশ, শীতকালের এই সবজি চাষে সর্বোচ্চ ৯০ দিন সময় লাগে।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর...
এক ক্লিকে বিভাগের খবর